মানসিক শান্তি নিয়ে উক্তি, স্ট্যাটাস ও বাণী

Photo of author

By admin

একজন মানুষের সবথেকে বেশি প্রয়োজন যে বিষয়টি তাহলে মানসিক শান্তি। কারণ প্রত্যেকটি মানুষের চায় এবং খোঁজাখুঁজি করে মানসিক শান্তি কোথায় পাওয়া যায়। কারণ বর্তমানে হাজারো লোক আছে যারা বিভিন্ন ধরনের কাজকর্ম করে কিন্তু সেখান থেকে কোন শান্তি পায় না। তাই আপনারা যারা কিভাবে শান্তিতে বসবাস করবেন এবং মানসিক ভাবে শান্তিতে থাকবেন এ সম্পর্কে কিছু তথ্য আমাদের পোস্টটিতে দিয়ে দিলাম। যাতে করে সকল কথাগুলো ভিত্তিতে আপনারা কিছু শান্তি হয়তো পেতে পারেন।

বাংলাদেশে হাজারো মানুষ এখন বিভিন্ন অশান্তিতে অবস্থায় আছে। কারণ একজন ব্যক্তি খাওয়া-দাওয়া বা টাকা পয়সা এতটা চায় না সে চায় মানসিক শান্তি। যাতে করে সে তার সমাজে এবং পরিবারের সকলের কাছে এক ফোঁটা শান্তি পেতে চায় এজন্যই সারাটা দিন রাত কাজ করে। কিন্তু পরিস্থিতি এমনই হয়ে গেছে যে কোন মানুষই কোন জায়গায় মানুষের শান্তি পায় না। সব সময় অবহেলায় থাকে। তাই আপনাদের সম্পর্কে কিভাবে মানুষের শান্তি পাবেন এ সম্পর্কে কিছু উক্তি এবং কিছু তথ্য নিচে দিয়ে দিলাম।

মানসিক শান্তি নিয়ে উক্তি

মানুষের জীবনের যে শান্তি তা হল মানসিক শান্তি। কেননা মানুষের মধ্যে যদি শান্তি থাকে তাহলে মানুষের জীবনটি আরো সুন্দর হয়ে ওঠে। মানুষ যদি সব দিক থেকে তার জীবনকে শান্তির সাথে ঘোরাফেরা করে তাহলে তারা সব কাজ করতে পারে ভালো ভালোবাসে। তাই মানসিক শান্তি হলে তারা সব কাজ করতে বেশি আনন্দ ভোগ করে। আর এই সম্পর্কে আমরা আরো সুন্দর করতে আপনাদেরকে কিছু সুন্দর সুন্দর উক্তি আমাদের এই পোস্টটি দিয়ে দিলাম।

  • আমি সময়মতো বেশি কথা না বললে আমাকে ক্ষমা করুন। এটা আমার মাথায় যথেষ্ট জোরে।
  • স্বাস্থ্যকর বাছাই করা শুরু করা আপনার আজকের বিষয়। আপনার শরীরের জন্য কেবল স্বাস্থ্যকর নয় এমন পছন্দগুলি আপনার মনের জন্য স্বাস্থ্যকর নয়।
  • এটি সর্বদা আপনার মানসিক স্বাস্থ্য সমস্যা নয়; কখনও কখনও আপনি যে পরিস্থিতি হয় পরিবর্তন করা প্রয়োজন।
  • আপনাকে ছাড়া কেউ নিজেকে বাঁচাতে পারবেন না এবং আপনি সংরক্ষণেরও উপযুক্ত। এটি একটি যুদ্ধ সহজেই জিততে পারে না, তবে যদি জয়ের কোনও মূল্যই হয় তবে এটি এটি।
  • আমাকে ঠিক করার চেষ্টা করবেন না দয়া করে। দয়া করে বুঝতে পারি যে আমি মাঝে মাঝে দু: খিত হই। কখনও কখনও আমি বিশ্বকে বন্ধ করে দেই এবং যখন আমার আরও ভাল মনে হয় আমি এটিকে আবার প্রবেশ করতে দেব।
  • এটি যতটা খারাপ ছিল আমি নিজের সম্পর্কে কিছু শিখেছি। যে আমি এই জাতীয় কিছু মাধ্যমে যেতে এবং বেঁচে থাকতে পারে। নিকোলাস স্পার্ক
  • আমরা আশা করি এই মানসিক স্বাস্থ্য অনুপ্রেরণামূলক উক্তি মানসিক স্বাস্থ্য সমস্যা দ্বারা আক্রান্ত যে কাউকে ইতিবাচকতা এবং সান্ত্বনা সরবরাহ করবে।

মানসিক শান্তি নিয়ে স্ট্যাটাস

বর্তমানে সব থেকে বেশি যে জিনিসটি মানুষের জীবনের সুন্দর হয় তাহলে মানসিক শান্তি। কেননা অশান্তি থাকলে মানুষের জীবন কখনোই সুন্দর হবে না। তাই শান্তিতে বসবাস করার জন্য মানসিক শান্তি কি বেশি গুরুত্বপূর্ণ। শুধু যে টাকা পয়সা হলেই যে শান্তি তা নয় তার সাথে মানসিক শান্তি টিউ সবচেয়ে বেশি গুরুত্বপূর্ণ। তাই আমরা এই সম্পর্কে আরো কিছু স্ট্যাটাস আপনাদের সাথে যোগ করব। যাতে করে আপনারা এগুলো দেখে আপনাদের মানুষের শান্তির অবস্থান গুলো আরো শক্ত করতে পারেন।

  • এই পৃথিবীর কোনও কিছুই আপনাকে নিজের চিন্তাভাবনার মতো অত্যাচার করতে পারে না।
  • আপনি আপনার চিন্তা নিয়ন্ত্রণ করতে হবে না। আপনাকে কেবল তাদের নিয়ন্ত্রণ করতে দেওয়া বন্ধ করতে হবে।
  • একে একটি কারণ হিসাবে একটি মানসিক অসুস্থতা বলা হয়, কারণ এটি একটি অসুস্থতা। কেন এটি অন্য কোনও অসুস্থতার মতো গ্রহণ করা যায় না?
  • আমি এমন কাউকে চাই না যে আমার মধ্যে কেবল ভাল দেখায়। আমি এমন কাউকে চাই যে খারাপটিও দেখতে পায় এবং এখনও আমাকে ভালবাসে।
  • আপনি যা ভাবেন তা বিশ্বাস করবেন না।
  • একদিন আমি জেগে উঠতে চাই; আপনার কাছে নয়, পৃথিবী আমার কাছে নয়।
  • যদি আমরা আমাদের বেদনা, রাগ এবং আমাদের ত্রুটিগুলির অস্তিত্বের পরিবর্তে তাদের অস্তিত্বের বিষয়ে সৎ হতে শুরু করি তবে আমরা সম্ভবত পৃথিবীটিকে খুঁজে পাওয়ার চেয়ে আরও ভাল জায়গা ছেড়ে চলে যাব। রাসেল উইলসন

মানসিক শান্তি নিয়ে বাণী

এখন আমরা আপনাদেরকে গুরুত্বপূর্ণ কিছু বাণী তুলে ধরব। যেগুলো কি না মানসিক শান্তির জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ হতে চলেছে। এগুলো দেখলে আপনারা খুব ভালোভাবেই বুঝতে পারবেন যে মানসিক শান্তিতেই মানুষের জন্য কতটুকু গুরুত্বপূর্ণ। এতে আপনাদের জীবন ও অনেক সুন্দর হওয়ায় এবং কি পরিবারের সাথে সুন্দরভাবে বসবাস করতে পারবেন। তাই এরকম বানিয়ে যদি আপনারা ভালোভাবে দেখতে চান তাহলে আমাদের পোস্টটি সম্পন্ন করতে হবে। একটু না টেনেও সম্পূর্ণ প্রথম থেকে আমাদের এই পোস্টটি পড়ুন। আশা করি আপনারা আমাদের এই সকল তথ্যটি ভালোভাবে বুঝতে পারবেন।

মানসিক শান্তি নিয়ে বাণী

  • অস্থিরতা বোধ করা ঠিক আছে। আলাদা করা ঠিক আছে। বিশ্ব থেকে আড়াল করা ঠিক আছে okay সাহায্যের দরকার আছে ঠিক আছে। ঠিক আছে না ঠিক আছে। আপনার মানসিক অসুস্থতা ব্যক্তিগত ব্যর্থতা নয়।
  • আপনার সংগ্রামকে আপনার পরিচয় হিসাবে যেন না ফেলে দেয়।
  • আমি যে সমস্ত জিনিস হারিয়েছি তার মধ্যে আমি আমার মনে সবচেয়ে মিস করছি। মার্ক টোয়েন
  • সমস্ত দাগ দেখায় না। সমস্ত ক্ষত নিরাময় হয় না। কখনও কখনও আপনি যে ব্যথা অনুভব করছেন তা আপনি দেখতে পাচ্ছেন না।
  • শেষ পর্যন্ত, আপনি চেষ্টা করেছিলেন এবং আপনি যত্নবান হয়েছিলেন, এবং কখনও কখনও, এটি যথেষ্ট। লেস ব্রাউন
  • আমি যে জিনিসগুলিকে নিয়ন্ত্রণ করতে পারি না এবং পরিবর্তন করতে পারি না সে সম্পর্কে আমি নিজেকে চাপ দিতে অস্বীকার করি।
  • আপনি আপনার পরিস্থিতি পরিবর্তন করতে পারবেন না, কেবলমাত্র আপনি যে পরিস্থিতিটি মোকাবেলা করতে বেছে নিয়েছেন তা আপনি বদলাতে পারবেন।

মানসিক শান্তি নিয়ে কবিতা

বর্তমানে মানুষ এখন মানুষের শান্তির জন্য অনেক রকমের কবিতাও খুজতেছে। তার কারণ হলো মানুষের জীবনে যদি মানসিক শান্তি থাকে তাহলে তাদের জীবনের সব কাজকর্ম করতে ভালো লাগে। তাই তারা শান্তিতে তাদের জীবনকে সুন্দর করার জন্য তারা কবিতা শুনতে চায়। তাই আমরা তাদের জন্য নিচে এ সম্পর্কে সুন্দর একটি কবিতা দিয়ে দিলাম।

নীরবতা এক প্রশান্তির নাম
– শাহানারা সুলতানা তানিয়া

নীরবতা এক প্রশান্তির নাম
নিকষ নিশীথে আকাশের সাদা মেঘ,
নিস্তব্ধতা এক কোলাহলের নাম
জলরংগে ছেয়ে থাকে জোরালো আবেগ ।
প্রাপ্তি এক বিরহের ঘ্রাণ
দুরের পথ চেয়ে সীমানা টানে দৃষ্টি
ধোঁয়াশা এক বেহায়াপনা
মরুময় অনিশ্চয়তাই যার দিব্যসৃষ্টি ।
আমাদের একলা পথের নির্জনতা
দক্ষিণের ঝিরিঝিরি শংখসাজে
আলপনা তবু হৃদয়ে সাজাই
একটা পুরনো থেমে যাওয়া ঢেউয়ের মাঝে ।

একটু প্রশান্তি

_হাকিকুর রহমান

অবশেষে,
সে বাতায়নে বসে,
একটু প্রশান্তির নিঃশ্বাস নেবার চেষ্টা করলো-
সমস্ত প্রান্তিক চাহিদাগুলোকে
সময়ের কাছে বন্ধক রেখে,
কোন এক দূরপাল্লার ট্রেনের সাথে
বিনা হুইসেল দিয়ে ছুটে চলার মতো করে,
চলতে চলতে হঠাৎ করে থেমে যাবে,
তারপর একটু জিড়িয়ে নেবে ঐ খোলা আঙ্গিনাতে-
যেখান থেকে দাওয়ার বাঁশের মাচার হাতলে ভর দিয়ে
খোলা আকাশটা দেখা যায়।

নীলাকাশ!
বহুদিন হলো ওদিকে তাকানোর ফুরসত হয়নিকো-
ভোর থেকে দুপুর গড়িয়ে, সাঁঝের বাতি জ্বালানো অবধি,
খড়ি কুড়িয়ে,
হেসেল ঠেলে,
জানালার মরচে পরিস্কার করে,
নলখাগড়ার ডালগুলো জড় করে,
সোয়ামীর গেঞ্জী থেকে ঝোলের দাঁগ ধুয়ে,
বড় ছেলের সার্টের বোতামটা লাগিয়ে,
ছোট মেয়ের জামার আস্তিনটা সেলাই করে….
যদিওবা একটু ফুরসত মিল্লো;
কোত্থেকে এক ঝড়ো কাক এসে
পোথেনে বসে ডাক শুরু করলো-
“একটু ক্ষুধার অন্ন চাই!”

পরিশেষে

আশা করছি আমরা আপনাদেরকে মানুষের শান্তি নিয়ে সকল ধরনের আপডেট তথ্য বলতে পেরেছি। যদি আপনাদের এই সকল তথ্যগুলো ভালো লেগে থাকে তাহলে এসব করে মাঝে শেয়ার করে দিবেন যাতে করে তারা দেখতে পারে। এবং যাতে করে তারাও যেন সবার কাছ থেকে মানুষের শান্তি পায় আমাদের এই পোস্টের মাধ্যমে। এবং আরো নতুন নতুন তথ্য পেতে আমাদের সাথেই থাকুন ধন্যবাদ।