রাজশাহী জেলার রমজানের সময়সূচী ২০২৪। জেনে নিন

Photo of author

By admin

প্রিয় মুসলমান ভাইয়েরা ও বোনেরা আপনাদের কে প্রথমে জানাই আসসালামু আলাইকুম। মুসলমানদের একটি মাস রয়েছে যেটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ সেটি হল রমজান মাস। দীর্ঘ এক মাস রোজা রেখে মুসলমানরা একটি দিনে আনন্দে মেতে উঠে। তো মানুষ জনরা রমজানের যে মাসটি রোজা রাখবে তার সময়সূচী সম্পর্কে জানতে চায়। তো এই সময়সূচি সম্পর্কে জানতে হলে সম্পূর্ণ আর্টিকেলটি ভালোভাবে পড়তে থাকুন।

রমজান মাসটি এমন একটি মাস যেটি মুসলমানদের অনেক গুরুত্বপূর্ণ। এ মাসে মুসলমানেরা তাদের সঠিক টাইম এর মধ্যে সেহেরি এবং কি ইফতার করে তারা রোজা সম্পূর্ণ করে। তো রাজশাহী জেলা যেসকল মুসলমান লোকেরা আছে তারা রমজান মাসের সময়সূচী সম্পর্কে অনেক জায়গায় সার্চ করে থাকে। তারা এখন চাইলে ঘরে বসে তাদের মোবাইল ফোন মাধ্যমে খুব সহজেই এই সময়সূচি সম্পর্কে জানতে পারবে।

রাজশাহী জেলার রমজানের সময়সূচী ২০২৪

বর্তমানে কিছু গুরুত্বপূর্ণ জেলা রয়েছে যেগুলো অনেক জায়গা থেকে ক্যালেন্ডার আকারে সময়সূচি গুলো মানুষজন পেয়ে থাকে। আবার কোন কোন জেলা আছে যেগুলো রমজানের সময়সূচি পাওয়ার জন্য মানুষজন খোঁজাখুঁজি করে থাকে। কিন্তু সঠিক টাইম কি তারা খুঁজে পায় না। তাই তারা এখন ইন্টারনেটের মাধ্যমে রাজশাহী জেলা রমজানের সময়সূচি লিখে সার্চ করলে তারা সঠিক টাইম টি পেয়ে যাবে।

রাজশাহীর সেহরি ও ইফতারের সময়সূচি ২০২৪

প্রিয় রাজশাহীবাসীগণ আপনারা তো সবাই রমজান মাস উপলক্ষে রোজা রাখবেন। কেননা এটি মুসলমানদের পাঁচটি রুকনের মধ্যে একটি। যা কিনা মহান আল্লাহ তাআলার হুকুম। তাই অবশ্যই রোজা যে রাখবেন এজন্য টাইম মেইনটেইন করে রাখাটা উত্তম। টাইম না করে রোজা রাখলে আপনার রোজা নাও হতে পারে। তাই রাজশাহীবাসীদের জন্য সেহরি ও ইফতারের সময়সূচি আর্টিকেল এর মাধ্যমে পেয়ে যাবেন।

রাজশাহী জেলার সেহরির শেষ সময়

রমজান মাসে রোজা থাকতে হলে আপনার সেহরি টাইম টি সবার আগে জানতে হবে। তার কারণ হলো আপনারা যদি সঠিক টাইম এর মধ্যে আপনার খাওয়া শেষ না করেন তাহলে আপনারা কখনো রোজা রাখতে পারবেন না। তাই খুবই গুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয় হল যে সেহরির টাইম টি আপনাদেরকে সঠিকভাবে মেনটেন করতে হবে। আর একে একে জেলার সেহরি টাইম এক এক রকমের। তাই আপনারা যারা রোজা রাখবেন তারা সঠিক টাইম এর মধ্যে সেহরি সেরে ফেলবেন।

রাজশাহী জেলার ইফতারের শেষ সময়

অনেকে আছে যারা জানতে চায় যে ইফতারের সময় কখন। তার একটিমাত্র কারণ হলো যে আপনারা যদি ইফতারের সময় জানতে না পারেন তাহলে আগে থেকে আপনার সবকিছু গোছানো সম্ভব হবে না। কেননা ইফতারের কয়েক ঘণ্টা আগে থেকেই আপনার সকল কাজকর্ম করে তারপর খাওয়া শুরু করতে হবে। তো রাজশাহী জেলার যে সকল লোকজন আছে যারা ইফতারের সময় জানতে চায়। তারা নিচের দেওয়া রাজশাহী জেলার ইফতারের সময়সূচি লিস্ট আকারে দেওয়া হল।

রহমতের ১০ দিন

তারিখ বার সেহরি শেষ সময় ইফতার এর শেষ সময়
১২ মার্চ মঙ্গলবার ৪:৫৭ am ৬:১৭ pm
১৩ মার্চ বুধবার ৪:৫৬ am ৬:১৭ pm
১৪ মার্চ বৃহস্পতিবার ৪:৫৫ am ৬:১৮ pm
১৫ মার্চ শুক্রবার ৪:৫৪ am ৬:১৮ pm
১৬ মার্চ শনিবার ৪:৫৩ am ৬:১৯ pm
১৭ মার্চ রবিবার ৪:৫২ am ৬:১৯ pm
১৮ মার্চ সোমবার ৪:৫১ am ৬:১৯ pm
১৯ মার্চ মঙ্গলবার ৪:৫০ am ৬:২০ pm
২০ মার্চ বুধবার ৪:৪৯ am ৬:২০ pm
২১ মার্চ বৃহস্পতিবার ৪:৪৮ am ৬:২০ pm

মাগফেরাতে ১০ দিন

তারিখ বার সেহরি শেষ সময় ইফতার এর শেষ সময়
২২ মার্চ শুক্রবার ৪:৪৭ am ৬:২১ pm
২৩ মার্চ শনিবার ৪:৪৬ am ৬:২১ pm
২৪ মার্চ রবিবার ৪:৪৫ am ৬:২১ pm
২৫ মার্চ সোমবার ৪:৪৪ am ৬:২২ pm
২৬ মার্চ মঙ্গলবার ৪:৪৩ am ৬:২২ pm
২৭ মার্চ বুধবার ৪:৪২ am ৬:২৩ pm
২৮ মার্চ বৃহস্পতিবার ৪:৪১ am ৬:২৩ pm
২৯ মার্চ শুক্রবার ৪:৪০ am ৬:২৪ pm
৩০ মার্চ শনিবার ৪:৩৯ am ৬:২৪ pm
৩১ মার্চ রবিবার ৪:৩৭ am ৬:২৫ pm

নাজাতের ১০ দিন

তারিখ বার সেহরি শেষ সময় ইফতার এর শেষ সময়
০১ এপ্রিল সোমবার ৪:৩৬ am ৬:২৫ pm
০২ এপ্রিল মঙ্গলবার ৪:৩৫ am ৬:২৬ pm
০৩ এপ্রিল বুধবার ৪:৩৪ am ৬:২৬ pm
০৪ এপ্রিল বৃহস্পতিবার ৪:৩৩ am ৬:২৬ pm
০৫ এপ্রিল শুক্রবার ৪:৩২ am ৬:২৭ pm
০৬ এপ্রিল শনিবার ৪:৩১ am ৬:২৭ pm
০৭ এপ্রিল রবিবার ৪:৩০ am ৬:২৮ pm
০৮ এপ্রিল সোমবার ৪:২৯ am ৬:২৮ pm
০৯ এপ্রিল মঙ্গলবার ৪:২৮ am ৬:২৮ pm
১০ এপ্রিল বুধবার ৪:২৭ am ৬:২৯ pm
সেহরির দোয়া

বাংলায় উচ্চারণঃ নাওয়াইতু আন আছুমা গাদাম মিন শাহরি রমাদান আল মোবারকি ফরদারলাকা ইয়া আল্লাহু  ফাতাকাব্বাল মিন্নী ইন্নাকা আনতাস সামিউল আলিম।

ইফতারের দোয়া

বাংলায় উচ্চারণঃ আল্লাহুম্মা লাকা ছুমতু ওয়া তাওয়াক্কালতু আলা রিজকিকা ওয়া আফতারতু বিরাহমাতিকা ইয়া আরহামার রাহিমীন।

পরিশেষে

রাজশাহী জেলার রমজানের সময়সূচী যে ইসলামিক ফাউন্ডেশনে তৈরি করা হয়েছে। ওই অনুযায়ী এই আর্টিকেলটিতে সময়সূচি আপনাদেরকে দেওয়া হয়েছে। আশা করছি সঠিক তথ্যটি এখান থেকে নিয়ে আপনারা আপনার রমজানের সেহরি ও ইফতারের সঠিক টাইম মতো আদায় করতে পারবেন। আর রমজান মাস হলো বরকতের মাস। এই মাসে আপনার যত আমল করবেন তার চেয়ে আরও দ্বিগুণ সওয়াব পাবেন।